Categories
News

ছবিটি কান্নার সময় চোখে রক্তক্ষরণের নয়


সম্প্রতি, কান্নার ফলে চোখে রক্তক্ষরণের দাবিতে একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

যা দাবি করা হচ্ছে

চোখের স্ক্লেরার শিরাগুলো লাল হয়ে ফুলে আছে এমন একটি ছবি ভিন্ন ভিন্ন দাবিতে প্রচার করা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে

দাবি ১
কান্নার পর মানুষের চোখ।

Screebshot from other perspectives facebook page

পোস্টটি দেখুন এখানে(আর্কইভ)

একই দাবিতে ২০২১ সালে টুইটারে প্রচারিত টুইট দেখুন এখানে, এখানে, এখানেএখানে
আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানেএখানে

দাবি ২
কাঁন্না করলে মানুষের চোখের আইরিশে ঠিক এভাবে র*ক্ত ক্ষরণ হয়।

Screenshot from Shesh kotha facebook page

এই দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত পোস্ট দেখুন এখানে, এখানেএখানে
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানেএখানে

দাবি ৩
কান্না করলে মানুষের চোখের ‘Sclera’ তে ঠিক এভাবে রক্তক্ষরণ হয়।

Screenshot from  A HA D facebook page

এই দাবিতে ফেসবুকে প্রচারিত পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানেএখানে
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে, এখানেএখানে। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানারের অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রচারিত ছবিটি প্রকৃতপক্ষে কান্নার পরে চোখের অবস্থার ছবি নয় বরং এটি সাবকংজাক্টিভাল হ্যামোরেজ, ইউভিটিস অথবা পিংক আই রোগে আক্রান্ত একটি চোখের ছবি।

Sclera ও Irish কী?

আমাদের চোখের সাদা অংশকে Sclera বলে এবং পিউপিলের চারপাশে যে কালো/বাদামি/নীল/সবুজ রঙের টিস্যু থাকে তাই মূলত আইরিশ।

Image from visioninitiative.org.au

অনুসন্ধান

কি-ওয়ার্ড সার্চে, Focal Point Vision নামে একটি চোখ বিষয়ক ওয়েবসাইটে ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে “What a Burst Blood Vessel In Your Eye Means” শীর্ষক শিরোনামে একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from Focal Point Vision

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, চোখের রক্তনালীগুলো খুব ছোট এবং সহজেই ভেঙ্গে যায়। কোনো কারণে এই রক্তনালী ভেঙ্গে গেলে রক্ত ​​কনজেক্টিভাল মেমব্রেনের নিচে আটকে যায়। এই ফেটে যাওয়া রক্তনালীকে সাবকঞ্জাক্টিভাল হেমোরেজ বলা হয়।

Screenshot from Focal Point Vision

তবে সাবকঞ্জাক্টিভাল হেমোরেজকে অনেকে কঞ্জাক্টিভিটিস বা চোখ ওঠা মনে করে। তবে দুইটি সম্পূর্ণ আলাদা রোগ।

রিভার্স ইমেজ সার্চে, যুক্তরাজ্যের প্রাইভেট জেনারেল প্র্যাক্টিশনার Dr Martin এর ওয়েবসাইট drmartingp.com এ ১২ ডিসেম্বর ২০১৫তারিখে “A Sight for Sore Eyes: Conjunctivitis symptoms” শীর্ষক শিরোনামে একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from drmartim website

প্রতিবেদনটিতে চোখ ওঠা রোগ এর ধরণ এবং চিকিৎসার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

Screenshot from drmartin

যুক্তরাষ্ট্রের চক্ষুবিষয়ক ওয়েবসাইট ‘Retina Care Specialist’ এ “Uveitis” শীর্ষক শিরোনামে একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from retinacare

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে “Uveitis চোখের কাঠামোতে ব্যাথা ও প্রদাহকে বোঝায় যা মূলত এর রক্ত সরবরাহের জন্য দায়ী।

পরবর্তীতে, American Academy of Ophthalmology নামের একটি ওয়েবসাইটে ৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখ প্রকাশিত “What Is Uveitis?” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ইউভিটিস এমন একটি রোগ যা চোখের মাঝের ট্যিসুকে আক্রমণ করে ফলে রক্তনালী ফুলে ওঠে।

screenshot from aao.org

এরপর, কান্নার সময় চোখে কোনো ধরণের রক্তক্ষরণ হয় কিনা এ বিষয়ে রিসার্চে Harvard Health Publishing এর ওয়েবসাইটে ১ মার্চ ২০২১ তারিখে “Is crying good for you?” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from health.harvard.edu

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, “is crying good for your health? The answer appears to be yes. Medical benefits of crying have been known as far back as the Classical era. Thinkers and physicians of ancient Greece and Rome posited that tears work like a purgative, draining off and purifying us. Today’s psychological thought largely concurs, emphasizing the role of crying as a mechanism that allows us to release stress and emotional pain.”

যার বাংলা অনুবাদ করলে দাঁড়ায়, “কান্না আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। কান্নার উপকারিতা ক্লাসিক যুগ থেকেই জানে মানুষ। প্রাচীন গ্রীস ও রোমের চিন্তাবিদরা কান্নাকে বা অশ্রুকে বিশুদ্ধকারী মনে করতেন। আধুনিক যুগের মনোবিজ্ঞানিরা এই ধারণার সাথে সহমত পোষণ করেন। কান্না আমাদের মানসিক বেদনা, চাপ, উদ্দ্বেগ থেকে মুক্তি দেয়”।

পরবর্তীতে, কান্নার সময় চোখে রক্তক্ষরণের বিষয়ে রিসার্চে হেমোলাক্রিয়া নামে এক রোগের সন্ধান পাওয়া যায় স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট Healthline এ। ২৯ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে “Why Am I Crying Blood?” শীর্ষক শিরোনামে একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায় ওয়েবসাইটে।

Screenshot from healthline

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, “হেমোলাক্রিয়া হচ্ছে একোটি বিরল মেডিকেল কনডিশন যেখানে ব্যক্তি রক্তমিশ্রিত অশ্রু উৎপাদন করে। হেমোলাক্রিয়া মূলত অন্য আরেকটি রোগের শুরু। তাই এ হেমোলাক্রিয়া হলে অতি দ্রুতই ডাক্তার দেখানো উচিৎ।”

পরবর্তীতে, এ বিষয়ে ভিশন আই হাসপাতালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ও ফ্যাকো সার্জন ডাঃ ওমর ফারুকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি রিউমর স্ক্যানারকে জানান, কান্না করলে চোখে রক্তক্ষরণ হওয়ার বিষয়টি মিথ্যা এবং উক্ত ছবিটি রোগাক্রান্ত একটি চোখের ছবি।

অর্থাৎ, কান্না করলে সুস্থ কোনো চোখে রক্তক্ষরণ হয় না।

মূলত, চোখের সাদা অংশে ছোটো ছোটো রক্তনালী থাকে যা খুব ভঙ্গুর। কোনো কারণে এই রক্তনালী ভেঙ্গে গেলে রক্ত ​​কনজেক্টিভাল মেমব্রেনের নিচে আটকে যায়। এই ফেটে যাওয়া রক্তনালীকে সাবকঞ্জাক্টিভাল হেমোরেজ বলা হয়। তাছাড়া, চোখ ওঠা ও ইউভিটিস রোগেও চোখের রক্তনালী ফুলে যায় ও চোখ লাল হয়ে যায়। তেমনই একটি রোগাক্রান্ত চোখের ছবিকে “কান্নার সময় আইরিশ/Sclera তে এভাবেই রক্তক্ষরণ হয়” দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে সুস্থ সবল একটি চোখে কান্নার সময় আইরিশ/স্ক্লেরা বা চোখের অন্য কোনো অংশে রক্তক্ষরণ হয়না।

সুতরাং, রোগাক্রান্ত একটি চোখের ছবিকে কান্নার সময় চোখের আইরিশ/স্ক্লেরাতে রক্তক্ষরণের ছবি দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও টুইটারে প্রচার করা হচ্ছে; যা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

তথ্যসূত্র





Source link