Categories
News

হ্যাকার হামজা বেনদেলাজের ফাঁসির ভুয়া ছবি ও তথ্য প্রচার


সম্প্রতি, ‘ফাঁসির দড়ি গলায় পড়ার পরেও এমন হাঁসি মুখে থাকা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। এই সেই হামজা বেনদেলাজ, যিনি ২১৭ টি ব্যাংক থেকে ৪০ কোটি ডলার হ্যাক করেন এবং আফ্রিকা ও ফিলিস্তিনে অনাহারে অর্ধাহারে মরে যাওয়ার উপক্রম মানুষদের মাঝে বিলিয়ে দেন।” শীর্ষক শিরোনামে একটি তথ্য ও দুইটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে ,এখানে এবং এখানে। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে জানা যায়, হামজা বেনদেলাজের নামে প্রচারিত তথ্যটি সত্য নয় এবং উক্ত তথ্যের সাথে সংযুক্ত ছবিটি হামজা বেনদেলাজের নয় বরং ছবিটি ভিন্ন একজন ব্যক্তির।

তথ্য যাচাই

প্রচারিত পোস্টগুলোতে হামজা বেনদেলাজের ডলার হ্যাক করে আফ্রিকা ও ফিলিস্তিনে অনাহারে ও অর্ধাহারে মরে যাওয়ার উপক্রম মানুষদের মাঝে বিলিয়ে দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। তবে পোস্টগুলোতে করা এই দাবিটি সত্য নয়। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসি ও থাইল্যান্ডের গণমাধ্যম Bangkok Post এ প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায় হামজা বেনদেলাজ সেই টাকা বিলাসী জীবনযাপনের জন্য ব্যয় করেছেন।

এছাড়া, পোস্টগুলোতে হামজা বেনদেলাজের ফাঁসি হয়েছে দাবি করা হলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘FBI‘ এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘Al Jazeera’ এ প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়ার একটি আদালতে  হামজা বেনদেলাজকে ১৫ বছরের জেল দেয়া হয়েছে।

ছবি যাচাই

প্রচারিত ছবিটি বেনদেলাজ নয় বরং এটি ইরানের নাগরিক মাজিদ কাভুসিফার এর ছবি, যাকে বিচারককে খুনের অপরাধে প্রকাশ্যে ফাঁসি দেয়া হয়।

মূলত, হ্যাকিং এর কারণে ১৫ বছরের জেলপ্রাপ্ত আলজেরিয়ান হ্যাকার হামজা বেনদেলাজের ফাঁসি হয়েছে দাবিতে মাজিদ কাভুসিফার নামের একজন ইরানের নাগরিকের ছবি প্রচার করা হচ্ছে। এছাড়া,  হামজা বেনদেলাজ হ্যাকিং করে প্রাপ্ত অর্থ আফ্রিকা ও ফিলিস্তিনে অনাহারে ও অর্ধাহারে মরে যাওয়ার উপক্রম মানুষদের মাঝে বিলিয়ে দিয়েছে দাবি করা হলেও রিউমর স্ক্যানারের অনুসন্ধানে জানা যায় সে  বিলাসী জীবনযাপনের জন্য উক্ত টাকা ব্যয় করেছে।

উল্লেখ্য, প্রায় একই দাবিতে বিষয়টি পূর্বেও একাধিকবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার করা হলে সে সময় বিষয়টিকে মিথ্যা হিসেবে শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার টিম। 



Source link