Categories
Mobile Mobile price BD

2023-এ SUV কেনার ইচ্ছা? Honda-র নতুন এসইউভির জন্য একটু অপেক্ষা বিচক্ষণের কাজ


ভারতের এসইউভি (SUV) গাড়ির বাজারে নতুন উদ্দীপনা যোগ করতে চলেছে সেডানের জন্য পরিচিত জাপানি সংস্থা হোন্ডা (Honda)। সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের আইকনিক মডেল হিসেবে সুখ্যাত Honda CR-V-এর পর নতুন প্রজন্মের WR-V আনতে চলেছে তারা। হোন্ডার বেস্ট-সেলিং মডেলের তকমা ছিনিয়ে নিতে পারে আসন্ন গাড়িটি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আপনি যদি এসইউভি কিনবেন বলে মনস্থির করে থাকেন, তবে Honda WR-V বাজারে লঞ্চ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত, নাকি এর প্রতিদ্বন্দ্বী Nexon, Brezza, Venue ইত্যাদি মডেলগুলি কিনে নেওয়া বিচক্ষণের কাজ? এই প্রতিবেদনে হোন্ডারনতুন এসইউভির জন্য অপেক্ষা করার পাঁচটি কারণ তুলে ধরা হল।

Honda WR-V SUV ডিজাইন

হোন্ডা এর আগে জানিয়েছিল ভারতের বাজারের জন্য তারা একটি নতুন এসইউভি বিকাশ করছে। গত বছর তারা ইন্দোনেশিয়ার বাজারে নিউ জেনারেশন WR-V-এর উপর থেকে পর্দা সরিয়েছিল। নতুন প্রজন্মের গাড়িটিতে ক্রসওভারের পরিবর্তে খাঁটি এসইউভি স্টাইল ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। যেমন বেশি গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স, উঁচু, স্পষ্ট বডি ক্ল্যাডিং, রুফ রেল এবং সি পিলার যুক্ত পিছনের দরজা।

Honda WR-V SUV ভরসা

হোন্ডার গাড়ি বরাবর ভরসা ও বিশ্বাসের দিক থেকে এগিয়ে। তাদের City ও Amaze গাড়িগুলিও যথেষ্ট জনপ্রিয়। এদিকে আসন্ন WR-V গাড়িটি GIIAS মোটর শো-তে দেখানো সংস্থার কনসেপ্ট মডেল Honda RS-এর উপর ভর করে আসবে। এটি PF2 প্ল্যাটফর্মে তৈরি করা হবে, যা Amaze-এর ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হয়েছে। এটি খুবই শক্তপোক্ত। গ্লোবাল এনক্যাপের ক্র্যাশ পরীক্ষায় ফোর স্টার পেয়েছে।

Honda WR-V SUV ফিচার্স

যদি কোনো কম্প্যাক্ট এসইউভি গাড়িকে নিজের বিক্রি বাড়াতে হয়, তবে সেক্ষেত্রে ফিচারের তালিকাটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। WR-V SUV এলইডি ডিআরএল সহ ফুল এলইডি হেডল্যাম্প, ওয়াক অ্যাওয়ে অটো লক, সেমি ডিজিটাল ইন্সট্রুমেন্ট ক্লাস্টার, ৬-স্পিকার, অটোমেটিক এসি, লেদার র‍্যাপ্ড স্টিয়ারিং হুইল ছাড়াও আরও অন্যান্য বৈশিষ্ট্য সহ হাজির হবে।

অন্য দিকে, গাড়িটির সুরক্ষা জনিত ফিচারগুলির তালিকায় রয়েছে ইবিডি সহ এবিএস, ব্রেক অ্যাসিস্ট, হিল স্টার্ট অ্যাসিস্ট, ভেহিকেল স্টেবিলিটি অ্যাসিস্ট, ৪-এয়ারব্যাগ ইত্যাদি। টপ-ট্রিমে থাকতে পারে এডিএএস সিস্টেম সহ লেন ওয়াচ।

Honda WR-V SUV ইঞ্জিন

Honda WR-V SUV-তে থাকছে একটি ১.৫ লিটার পেট্রোল ইঞ্জিন। যা থেকে সর্বোচ্চ ১১৯ বিএইচপি শক্তি এবং ১৪৫ এনএম টর্ক উৎপন্ন হবে। এটি ভারতে বিক্রিত পঞ্চম প্রজন্মের সিটিতেও বর্তমান। ইন্দোনেশিয়ার বাজারে গাড়িটি সিভিটি অটোমেটিক ট্রান্সমিশনে উপলব্ধ হলেও ভারতীয় মডেলটি ৬-স্পিড ম্যানুয়াল গিয়ারবক্স সহ আসবে বলেই মনে করা হচ্ছে।



Source link