Categories
News

জাপানি সৈনিকের সাথে মৃত ভাইকে বহন করা শিশুর কথোপকথনের দাবিটি গুজব


সম্প্রতি “জাপানে যুদ্ধের সময় এই ছেলেটি তার মৃত ভাইকে কবর দিতে পিঠে নিয়ে যাচ্ছিল। একজন সৈন্য তাকে লক্ষ্য করে এবং তাকে এই মৃত শিশুটিকে ফেলে দিতে বলে যাতে সে ক্লান্ত না হয়। তিনি জবাব দিলেন: সে ভারী নয়, সে আমার ভাই!” শীর্ষক দাবিতে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানেএখানে
পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানেএখানে।

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, জাপানি সৈনিকের সাথে মৃত ভাইকে বহন করা শিশুর কথোপকথনের তথ্যটি সঠিক নয় বরং শিশুটি তার মৃত ভাইকে নিয়ে একটি শ্মশানের সামনে দাঁড়িয়েছিল এবং সে সেখানে কারো সাথেই কথা বলেনি।

অনুসন্ধানের মাধ্যমে বিভিন্ন ঐতিহাসিক ছবির আর্কাইভ ওয়েবসাইট ‘Rare Historical Photo’ এর ওয়েবসাইটে “A Japanese boy standing at attention after having brought his dead younger brother to a cremation pyre, 1945” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, জো ও’ডোনেল নামে একজন চিত্রগ্রাহক ছবিটি জাপানের নাগাসাকি থেকে তুলেছিলেন। তাকে মার্কিন সেনাবাহিনী জাপানে পাঠিয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন পারমাণবিক বোমার ভয়াবহতায় দেশটিতে যে ক্ষতি হয়েছিল তা নথিভুক্ত করার জন্য।

এই তথ্যটির আরও অধিকতর সত্যতা যাচাইয়ে পরবর্তীতে রিউমর স্ক্যানার থেকে জো ও’ডোনেলের ছেলে টিজে ও’ডোনেলের সাথে ইমেইলে যোগাযোগ করা হয়। তিনি রিউমর স্ক্যানারকে জানান, জাপানি সৈনিকের মৃত ভাইকে বহন করা শিশুর কথোপকথনের বিষয়টি মিথ্যা। এটার সাথে আমার বাবার ছবিটির কোনো সম্পর্ক নেই। মৃত ছেলেটিকে নিয়ে তার ভাই একটি শ্মশানের সামনে দাঁড়িয়েছিল, যেখানে মূলত পারমাণবিক বোমায় নিহতদের পোড়ানো হতো। এসময় তার সঙ্গে আমার বাবারও কোনো কথা হয়নি, ছেলেটিও কোনো কথা বলেনি।

মূলত, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আমেরিকা জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকি শহরে পারমাণবিক বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। ধারণা করা হয়, এই বোমা বিস্ফোরণে হিরোশিমা শহরের সাড়ে তিন লাখ মানুষের মধ্যে ১ লাখ ৪০ হাজার মানুষ এবং নাগাসাকিতে ৭৪ হাজার মানুষ কেবল বোমার বিস্ফোরণেই মারা যায়। এ ঘটনার পর মার্কিন সেনাবাহিনী পারমাণবিক বোমার ভয়াবহতায় দেশটিতে যে ক্ষতি হয়েছিল তা নথিভুক্ত করার জন্য জো ও’ডোনেল নামে একজন চিত্রগ্রাহককে জাপানে পাঠায়। তিনি নাগাসাকি থেকে উক্ত ছবিটি তুলেছিলেন, যেখানে একটি জাপানি ছেলে তার ভাইয়ের শেষকৃত্যের জন্য শ্মশানে অপেক্ষা করছিলো। এ সময়টিতে সে কারো সাথেই কথা বলেনি। শেষকৃত্য সম্পন্ন হলে সে নীরবে সেখান থেকে প্রস্থান করে। কিন্তু এই ছবিটিকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জাপানি সৈনিকের সাথে মৃত ভাইকে বহন করা শিশুর কথোপকথনের দাবিতে প্রচার করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, রিউমর স্ক্যানার টিম বিষয়টি পূর্বেও বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপ এবং পেজ হতে মিথ্যা হিসেবে শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার।



Source link