Categories
টিপস

সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পাওয়ার জন্য কোন ভিটামিনের কী কাজ?


সুষম খাদ্য তালিকায় ভিটামিন অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। আমাদের চুল, ত্বক, নখের স্বাভাবিক গঠন বজায় রাখা আর পুষ্টি জোগানোতে ভিটামিন বেশ বড় ভূমিকা রাখে। এই কথাগুলো আমরা ছোটবেলাতেই পড়ে এসেছি, তাই না? কিন্তু বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের ডায়েটে ভিটামিনযুক্ত খাবারের তালিকা কমতে থাকে। আর এর প্রভাব সবার আগে বোঝা যায় ত্বক ও চুলে। ত্বক মলিন হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে চুল ড্যামেজ হয়ে যাওয়া, আগা ফাটা বা চুলের গোড়া নরম হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা যায়। এই সমস্যাগুলোর সমাধানে খাদ্য তালিকায় যুক্ত করুন ভিটামিন যুক্ত খাবার। কিন্তু কীভাবে বুঝবেন চুলের জন্য কোন ভিটামিন কীভাবে কাজ করে? সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পাওয়ার জন্য কোন ভিটামিনের কী কাজ সেটাই জানাবো আজকে।

সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পেতে ভিটামিনের কাজ

হেয়ার গ্রোথে ভিটামিন এ

চুলের জন্য ভিটামিন এ বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি ভূমিকা রাখে। যেমন- চুলের বৃদ্ধিতে, চুলের গোড়া শক্ত ও মজবুত করে তুলতে এর জুড়ি নেই। এছাড়া ড্রাই হেয়ারকে হাইড্রেটেড রাখতে, ফ্রিজি হেয়ারের প্রবলেম কমাতে, হেয়ার ব্রেকেজ প্রিভেন্ট করতেও এই ভিটামিন বেশ হেল্পফুল। তাছাড়া স্ক্যাল্পে ন্যাচারাল অয়েল প্রোডাকশন করে স্ক্যাল্পকেও হেলদি রাখে এই ভিটামিন। এক কথায়, হেলদি হেয়ার পেতে চাইলে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় একে রাখতে হবে। তাই ডায়েটে রাখুন ভিটামিন-এ সমৃদ্ধ গাজর, পালং শাক, মিষ্টি আলু, দুধ, ডিম, টক দই ইত্যাদি।

সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের জন্য ভিটামিন এ যুক্ত খাবার

চুল ঘন রাখতে ভিটামিন বি 

আপনি যদি ডার্মাটোলজিস্টের কাছে যান তাহলে তিনি ভিটামিন বি আছে এমন ডায়েট সাজেস্ট করতে পারেন, স্পেশালি ভিটামিন বি ১২। এই ভিটামিনের আরও একটি ফর্ম হচ্ছে বায়োটিন। আমাদের চুল কেরাটিন নামক প্রোটিন দিয়ে তৈরি। এই কেরাটিনের গঠন ঠিক রাখতে হেল্প করে বায়োটিন। শুধু তাই নয়, আমাদের স্ক্যাল্পে অক্সিজেন ও নিউট্রিয়েন্ট ক্যারি করতেও বায়োটিন হেল্প করে। এজন্য অনেকেই চুলে কেরাটিন ট্রিটমেন্ট নিয়ে থাকেন। আর যখন মেনোপজ হয় সেই সাথে আমাদের শরীরে বি ১২ ভিটামিন কমতে থাকে যেটা কিনা হেয়ার লসকে আরও বাড়িয়ে দেয়। এই ভিটামিন স্ক্যাল্পের ব্লাড সার্কুলেশন বাড়িয়ে দেয় বলে হেয়ার ফলিকলগুলো পুষ্টি পায়। যার কারণে চুল হয়ে ওঠে ঘন। এই ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করতে ডায়েটে রাখুন কাঠবাদাম, কলা, মাশরুম, সী ফুড ইত্যাদি। আর যদি সাপ্লিমেন্ট হিসাবে নিতে চান অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে ভিটামিন বি ইনটেক করবেন।

চুল পাকা রোধে ভিটামিন সি

অনেকের চুল খুব তাড়াতাড়ি পেকে যায় বলে দুশ্চিন্তার শেষ থাকে না। ভিটামিন সি ডেফিসিয়েন্সি হলে অকালে চুল পেকে যায়। পাকা চুল ঢাকতে মেহেদি বা হেয়ার কালার ব্যবহার করা হয়। অথচ খাদ্য তালিকায় ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কিছু খাবার যুক্ত করলেই সমস্যা অনেকটাই কমে আসে। এছাড়া বয়স বাড়ার সাথে সাথে শরীরের কোলাজেন প্রোডাকশন কমতে থাকে, যার কারণে চুল হয়ে পড়ে ভঙ্গুর। এই কোলাজেন প্রোডাকশন বাড়াতে হেল্প করে ভিটামিন সি। কমলা, মাল্টা, লেবু, আঙুর, পেঁপে, আনারস, জাম, স্ট্রবেরি, কাঁচা মরিচ ইত্যাদিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি। বিশেষজ্ঞদের মতে, দৈনিক খাদ্য তালিকায় ৩.৮ গ্রাম ভিটামিন সি স্ক্যাল্পে ব্লাড সার্কুলেশন বাড়াতে হেল্প করে এবং চুল সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে।

চুল পাকা রোধে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার

নতুন চুল গজাতে ভিটামিন ডি

ভিটামিন-ডি এর কথা শুনলে সবার আগে মাথায় আসে সকাল বেলার মিষ্টি রোদের কথা, তাই না? সকালের রোদ অবশ্যই জরুরি। কারণ এই রোদে থাকা ভিটামিন ডি হাড় মজবুত রাখে। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা অ্যালোপেশিয়া নামক প্রবলেম ফেইস করছেন। এই প্রবলেম হলে চুল পড়ে টাক হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এই সমস্যাটি হয় যদি ভিটামিন ডি এর অভাব হয়। তাই হেয়ার ফলিকল স্টিমুলেট করবে এমন ভিটামিন ডি যুক্ত খাবার খাদ্য তালিকায় যুক্ত করতে হবে। যেমন- স্যালমন, ম্যাকারেল ফিশ, মাছের তেল, ডিমের কুসুম, দুধ, চীজ ইত্যাদি। যদি খাবার দিয়ে চাহিদা পূরণ না হয় সেক্ষেত্রে ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্টও ইনটেক করতে পারেন।

চুলের শুষ্কতা কমাতে ভিটামিন ই

হেয়ার ড্রাই হয়ে ব্রেকেজের প্রবলেম বেড়ে যাচ্ছে? রেগুলার ডায়েটে অ্যাড করুন ভিটামিন ই যুক্ত খাবার, সেই সাথে হেয়ার কেয়ার রুটিনে অ্যাড করুন ভিটামিন ই ক্যাপসুল। এই ভিটামিন আছে এমন কিছু খাবার হচ্ছে বাদাম, পালং শাক, অলিভ অয়েল, সূর্যমুখীর বীজ ইত্যাদি। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় কিছু পরিমাণ হলেও ভিটামিন ই ইনক্লুড করা উচিত। এছাড়া ড্রাই ও ড্যামেজ হেয়ার রিপেয়ারে ভিটামিন ই যুক্ত অয়েল খুব ভালো কাজ করে।

হেয়ার ড্রাইনেস কমাতে ভিটামিন ই

স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের জন্য দুটো হেয়ার প্যাক

এতক্ষণ তো কোন ভিটামিন চুলের কী উপকার করে, সেটা জানা হলো। হেলদি খাবার খাওয়ার পাশাপাশি চুল ভালো রাখার জন্য সপ্তাহে ১/২ বার কনসার্ন অনুযায়ী হেয়ার প্যাক ইউজ করতে পারেন। চলুন জেনে নেই এমনই দুটি হেয়ার প্যাক সম্পর্কে।

হেয়ার রিপেয়ার প্যাক

ড্যামেজ হেয়ার হোক অথবা হেয়ার গ্রোথ, অনেক কিছুর সমাধান রয়েছে জবা ফুলে। ভিটামিন এ, বি, সি, মিনারেলস, অ্যামিনো অ্যাসিডের খুব ভালো উৎস এই ফুল। ৩/৪ টি জবা ফুল নিয়ে পাপড়িগুলো আলাদা করে ব্লেন্ড করে তাতে ১/২ চামচ ভিটামিন ই অয়েল মিশিয়ে নিন। প্যাকটি পুরো স্ক্যাল্পে ভালোভাবে লাগিয়ে ৩০/৩৫ মিনিট অপেক্ষা করে মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। অনেকের কাছে ফুল সংগ্রহ করে পেস্ট বানানো কিছুটা হ্যাসেল লাগতে পারে। তারা চাইলে জবা ফুলের গুঁড়োও প্যাক হিসেবে ইউজ করতে পারেন। চুল পড়া, চুলের আগা ফাটা বা শুষ্কতা কমিয়ে চুলকে সফট করে তুলতে, স্ক্যাল্পের ইচিনেস এবং খুশকি কমিয়ে আনতেও দারুণ উপকারী এই প্যাকটি।

সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল এর জন্য জবা ফুল

হেয়ার প্রোটিন প্যাক

চুলের গোড়া মজবুত করে চুলকে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে তোলে ডিম। কোকোনাট অয়েল চুলকে করে তোলে সফট। ড্যামেজ হেয়ার রিপেয়ার করতে হেল্প করে ভিটামিন ই। এই তিনটি ইনগ্রেডিয়েন্ট দিয়ে বানানো হেয়ার প্রোটিন প্যাক চুলের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বেশ হেল্প করে। একটা বোলে ১টি ডিম ফেটিয়ে নিয়ে তাতে ৩/৪ টেবিল চামচ কোকোনাট অয়েল এবং ২/৩টি ভিটামিন ই ক্যাপসুল দিন। এবার এতে ২ চা চামচ অ্যালোভেরা জেল ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এই প্যাকটি পুরো চুলে অ্যাপ্লাই করুন। এক ঘন্টা রেখে মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে ওয়াশ করে নিন।

 

ভিটামিন যে চুলের জন্য উপকারী সেটা কিন্তু কমবেশি আমরা সবাই জানি। কিন্তু কোন ভিটামিন চুলের জন্য কীভাবে কাজ করে সেটা কিন্তু অনেকেই জানি না। এদিকে ভিটামিনের অভাবে চুলের স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যাচ্ছে, অন্যদিকে প্রোডাক্ট ব্যবহারেও উপকার পাওয়া যাচ্ছে না। কারণ শুধু বাহির থেকে যত্ন নেয়া নয়, ভিটামিন যুক্ত খাবার ইনটেক করাও জরুরি। তাই ভিটামিন যুক্ত হেলদি খাবার খান, সুস্থ থাকুন, সুন্দর রাখুন চুল।

ছবিঃ সাজগোজ, সাটারস্টক





Source link