Categories
News

কক্সবাজারে পর্যটকদের ভিড় দাবিতে পুরোনো ছবি প্রচার


সম্প্রতি “কক্সবাজারের বর্তমান চিত্র” শীর্ষক শিরোনামে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানেএখানে। পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানেএখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানারের অনুসন্ধানে জানা যায়, কক্সবাজারের বর্তমান চিত্র দাবিতে যে ছবিটি প্রচার করা হচ্ছে তা এবছর দুর্গাপূজার দশমীর দিন, অর্থাৎ গত ৫ই অক্টোবর লাবণী বীচ পয়েন্টে প্রতিমা বিসর্জনের সময়ে তোলা ছবি।

রিভার্স ইমেজ সার্চ পদ্ধতিতে Coxsbazarvisit.com নামের একটি ওয়েবসাইটে গত ৫ অক্টোবর এই ছবিটি খুঁজে পাওয়া যায়।

ছবির ক্যাপশনে বলা হয়েছে, “বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারের লাবণী পয়েন্টে উৎসবমুখর পরিবেশে প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠিত।”

পরবর্তীতে, গত ৬ অক্টোবর দেশীয় মূলধারার গণমাধ্যম “নয়াদিগন্ত”-এর অনলাইন সংস্করণে “টানা ছুটিতে লাখো মানুষ কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, “প্রতিমা বিসর্জনকে ঘিরে সৈকতের লাবণী পয়েন্টে বুধবার দুপুর ২টার পর থেকে জেলার কক্সবাজার সদর, উখিয়া, টেকনাফ, সদর, ঈদগাহ, চৌফলদন্ডী ছাড়াও নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে শোভাযাত্রা সহকারে প্রতিমা আসতে শুরু করে। তাদের এ অনুষ্ঠানকে ঘিরেও সমাগম ঘটে পর্যটকসহ জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা লাখো মানুষের।”

এছাড়া, গত ৫ অক্টোবর আরেকটি দেশীয় মূলধারার গণমাধ্যম “সময়”-এর অনলাইন সংস্করণে “প্রতিমা বিসর্জনে এতো মানুষ আগে দেখেনি কক্সবাজারবাসী” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “বুধবার (৫ অক্টোবর) প্রতিমা বিসর্জনকে কেন্দ্র করে কক্সবাজারের লাবণী পয়েন্টে সম্প্রীতির এক জনারণ্য বসে। যে জনারণ্যের কোলাহলে উলুধ্বনি, শঙ্খ ও ঢোলের সুরে মুখরিত ছিল সৈকতের পড়ন্ত বিকেল। পশ্চিম আকাশে সূর্যের লাল আবহে স্রোতের পানিতে ভাসিয়ে বিদায় জানানো হল শারদীয় দুর্গাকে।”

পরবর্তীতে, “Travel in budget” নামে একটি ভ্রমণসংক্রান্ত ফেসবুক গ্রুপে গত ৬ অক্টোবর Tawsir Ahmed Sagar নামের একটি আইডি থেকে “বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারের লাবণী পয়েন্টে উৎসবমুখর পরিবেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজকের কক্সবাজার লাবনী পয়েন্ট বীচের কিছু দৃশ্য। ছবি আহমেদ রায়হান” শীর্ষক ক্যাপশনে বেশ কিছু ছবি আপলোড করা হয়, যার মধ্যে আলোচিত ছবিটিও খুঁজে পাওয়া যায়।

মূলত, চলতি বছরের অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রতিমা বিসর্জন, সাপ্তাহিক ছুটি ও ঈদে মিলাদুন্নবী স:-এর টানা ছুটি উপলক্ষে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে লাখো মানুষ ভিড় করেন। সেসময়ে সনাতন ধর্মালম্বীদের শারদীয় দুর্গাপূজা শেষে কক্সবাজারের লাবণী পয়েন্টে প্রতিমা বিসর্জনের দিনের ধারণকৃত একটি ছবিকে সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের ভিড়ের দৃশ্য দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ২৩-২৪ তারিখে শুক্র-শনি সাপ্তাহিক ছুটির সাথে রবিবার বড়দিনের ছুটিসহ মোট ৩ দিনের ছুটি পেয়েছ কর্মব্যস্ত মানুষ। ফলে দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড় ছিলো।

প্রসঙ্গত, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বিষয়ে ছড়ানো গুজবকে শনাক্ত করে ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রিউমর স্ক্যানার।

সুতরাং, চলতি বছরের অক্টোবর মাসের কক্সবাজারে পর্যটকদের ভিড়ের ছবিকে সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজারের পর্যটকদের ভিড়ের ছবি দাবিতে ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে; যা বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র



Source link