Categories
News

সৌদি আরবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালন দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি ইরাকের


সম্প্রতি “ওহাবীরা সারা জীবন সৌদি আরবের দলিল দিতো, সৌদিতে পবিত্র ঈদে-এ-মিলাদুন্নবী(ﷺ) হয় না, যারা মিলাদুন্নবী(ﷺ) করে তারা বেদাতি, আরে মিয়া এখন তো সৌদি আরবে রাষ্ট্রীয়ভাবে পবিত্র ঈদে-এ-মিলাদুন্নবী(ﷺ) উদযাপন করা হয়, এখন তোমাদের ফতোয়া কই…?” শীর্ষক দাবিতে একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এরকম কিছু ভিডিও দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

ভিডিওগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। 

গুজবের সূত্রপাত

সৌদি আরবে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি ২০২১ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর “ওহাবীরা সারা জীবন সৌদি আরবের দলিল দিতো,সৌদিতে মিলাদুন্নবী হয় না,এখন তোমাদের ফতোয়া কই?” (আর্কাইভ) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়।

২০২১ সালে প্রচারিত এমন আরও কিছু ভিডিও দেখুন এখানে, এখানেএখানে। 

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, সৌদি আরবে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি সত্য নয় বরং ভিডিওটি ইরাকের বাগদাদের একটি মসজিদে অনুষ্ঠিত মিলাদের।

রিভার্স ইমেজ সার্চের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউবে Mirani Group Official এ ২০১৯ সালের ২ মার্চ “BARGAH-E-GAUS-E-AAZAM DASTAGIR…MASJID ME SALAT-O-SALAM,BAGHDAD SHAREEF” শীর্ষক শিরোনামে প্রচারিত একটি ভিডিও খুঁজে পাওয়া যায়। 

ভিডিওটির শিরোনাম থেকে জানা যায়, এটি ইরাকের বাগদাদ শরীফের বারগাহে গাউসে আজম দস্তগীর মসজিদে সালাতু সালাম অর্থাৎ মিলাদ পড়ার ভিডিও এটি। 

অপরদিকে সৌদি আরবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করা হয় কি না এমন তথ্য অনুসন্ধানে সৌদিভিত্তিক গণমাধ্যম Arab News এ ২০১৫ সালের জানুয়ারির ৩ তারিখ  “Prophet’s birthday celebration ‘sinful’” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন পাওয়া যায়।

প্রতিবেদনটিতে সৌদি আরবের গ্র‍্যান্ড মুফতি আবদুল আজিজকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, মুহাম্মদ (সা.) এর জন্মদিন পালন একটি কুসংস্কার এবং ধর্মের অবৈধ চর্চা।

তাকে উদ্ধৃত করে প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, এটা বিদায়াত, যা রাসূল সা. এর সাহাবী ও সাহাবীদের অনুসারীদের মৃত্যুর তিন শতাব্দী পর ইসলামে যুক্ত হয়েছে। 

মূলত, আলোচিত ভিডিওটি ২০১৯ সালে ইরাকের বাগদাদ শরীফের বারগাহে গাউসে আজম দস্তগীর মসজিদে সালাতু সালাম অর্থাৎ মিলাদ পড়ার ভিডিও। এই ভিডিওটিকেই বাংলাদেশে সৌদি আরবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে। তবে অনুসন্ধানে দেখা যায়, সৌদি আরবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করা হয় না এবং দেশটির গ্র‍্যান্ড মুফতি ২০১৫ সালে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনকে বিদায়াত হিসেবে ঘোষণা করেছেন।  

প্রসঙ্গত, পূর্বেও গত ২৩ সেপ্টেম্বর সৌদির আরবের জাতীয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত একটি স্পিডবোট প্রদর্শনীর ভিডিওকে সৌদি আরবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের দাবিতে প্রচার করা হলে সেটি নিয়েও ফ্যাক্টচেক প্রতিবেদন প্রকাশ করে রিউমর স্ক্যানার। 

সুতরাং, সৌদি আরবে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের দাবিতে প্রচারিত ভিডিওটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। 

তথ্যসূত্র



Source link

Leave a Reply