Categories
News

সাফ গেমসে নারী ফুটবল চালু কি জিয়াউর রহমান করেছিলেন?


সম্প্রতি “সাফ গেমসে নারী ফুটবল চালু করেন প্রেসিডেন্ট জিয়া, দাবি ফখরুলের” শীর্ষক শিরোনামে একটি তথ্য বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বরাতে গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে।

গণমাধ্যমে প্রচারিত এমন কিছু প্রতিবেদন দেখুন এখানে, এখানে

মির্জা ফখরুল ইসলামের মূল বক্তব্যটি দেখুন এখানে। আর্কাইভ দেখুন এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, সাফ গেমসে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নারী ফুটবল চালুর দাবিটি সঠিক নয় বরং সাফ গেমসে নারী ফুটবল চালু হয় ২০১০ সালে।

কি-ওয়ার্ড অনুসন্ধানের মাধ্যমে, ভারতীয় The Bridge.in নামের একটি গণমাধ্যমে ১৬ সেপ্টেম্বর “SAFF Women’s Championship 2022: India misses final for the first time” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, ২০১০ সালে সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হওয়ার পর থেকে এবারই প্রথম ভারত ফাইনাল খেলা থেকে বাদ পড়েছে।

অর্থাৎ, সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০১০ সালে। যেটিকে একই সাথে এসএ গেমস-২০১০ এর নারীদের ফুটবল ইভেন্ট হিসেবে গণ্য করা হয়।

পরবর্তীতে সাফ বা সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন সম্পর্কে অনুসন্ধান করে সাফের ওয়েবসাইট থেকে জানা যায়, সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (সাফ) এর যাত্রা শুরু হয় ১৯৯৭ সালে। যেটি ১৯৯৩ সালে প্রথমবারের মতো সাউথ এশিয়ান অ্যাসিয়েশন অফ রিজিওনাল কো-অপারেশন বা সার্ক গোল্ড কাপ নামে অনুষ্ঠিত হয়।

২০১০ সালে সাফে নারী চ্যাম্পিয়নশিপ শুরুর আগ পর্যন্ত এই চ্যাম্পিয়নশীপে কেবল সার্কভুক্ত দেশগুলোর পুরুষ জাতীয় দলই অংশগ্রহণ করতো।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশের মূলধারার অনলাইন গণমাধ্যম NewsBangla24.com এ ১৯ সেপ্টেম্বরে “সাফ শিরোপা: ছেলেদের থেকে এগিয়ে মেয়েরা” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। 

প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, ২০১০ সালে সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ ও ১৯৯৩ সালে ছেলেদের সাফ টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়েছিল। অপরদিকে  সাফ গেমস ফুটবল শুরু হয় ১৯৮৪ সালে।

পরবর্তীতে সাফ গেমস সম্পর্কে জানতে অলিম্পিক কাউন্সিল অব এশিয়ার ওয়েবসাইট থেকে জানা যায়, সাফ গেমসের প্রথম আসর অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৪ সালে নেপালের কাঠমুন্ডুতে। তখন এটি SAF Games বা সাউথ এশিয়ান ফেডারেশন গেমস নামে পরিচিত ছিল। পরে ২০০৪ সালে এটির নাম পরিবর্তন করে সাউথ এশিয়ান গেমস রাখা হয়। যেটি গেমসটির শ্রীলঙ্কায় বসা দশম আসর থেকে কার্যকর হয়।

অপরদিকে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ১৯৮১ সালে নিহত হন।

মূলত, এস এ গেমস (পূর্ববর্তী নাম, সাফ গেমস) এর প্রথম আসর বসে ১৯৮৪ সালে। চার বছর পর পর অনুষ্ঠিত এই আসরে নারীদের ফুটবল যুক্ত হয় ২০১০ সালে। এর আগে কেবল এই গেমসে পুরুষ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপই হতো৷ অন্যদিকে সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (সাফ) এর যাত্রা শুরু হয় ১৯৯৭ সালে। যেটি ১৯৯৩ সালে প্রথমবারের মতো সাউথ এশিয়ান অ্যাসিয়েশন অফ রিজিওনাল কো-অপারেশন বা সার্ক গোল্ড কাপ নামে অনুষ্ঠিত হয়। ২০১০ সালের পূর্ব পর্যন্ত এই টুর্নামেন্টেও কেবল পুরুষ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ হতো৷ পরবর্তীতে ২০১০ সালে এতে নারী ফুটবল যুক্ত করা হয়। যেটি একই সাথে এসএ গেমস-২০১০ এর মহিলাদের ফুটবল ইভেন্ট হিসেবে গণ্য করা হয়। অপরদিকে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান নিহত  হন ১৯৮১ সালের ৩০ মে। 

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের মেয়েদের প্রথম ফুটবলের যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৭৭ সালে। ভিকারুননিসা নূন স্কুলের মেয়েদের নিয়ে দেশে প্রথম মেয়েদের ফুটবল অনুশীলন শুরু করেছিলেন প্রয়াত কোচ সাহেব আলী। পরবর্তীতে ২০০৩-০৪ সালে বয়সভিত্তিক ফুটবল দিয়ে আন্তর্জাতিক স্তরে পা ফেলে বাংলাদেশ। এরপর মূল জাতীয় দল আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে ২০১০ সালে। 

সুতরাং, এসএ গেমস বা সাফে জিয়াউর রহমানের নারী ফুটবল যুক্ত করার দাবিটি ভিত্তিহীন ও মিথ্যা।

তথ্যসূত্র



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published.