Categories
News

ছবিটি সোভিয়েতের পরিত্যক্ত কোনো উড়োজাহাজের নয়


সম্প্রতি, “সমুদ্রের তীরে পড়ে থাকা পরিত্যক্ত সোভিয়েত উড়োজাহাজ (Lun-class ekranoplan)” শীর্ষক শিরোনামে একটি তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

ফেসবুকে প্রচারিত এমন কিছু পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে। পোস্টগুলোর আর্কাইভ ভার্সন দেখুন এখানে, এখানে, এখানে, এখানে এবং এখানে

ফ্যাক্টচেক

রিউমর স্ক্যানার টিমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, ছবিটি পরিত্যক্ত সোভিয়েত উড়োজাহাজের নয় বরং এটি জাহাজ এবং উড়োজাহজ সমন্বয়ে সোভিয়েতের তৈরী Ekranoplan নামের এক ধরণের যান।

কি-ওয়ার্ড সার্চের মাধ্যমে, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম CNN এর ওয়েবসাইটে ২০২১ সালের ৩০ ডিসেম্বর তারিখে প্রকাশিত The ‘Caspian Sea Monster’ rises from the grave শিরোনামে একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from cnn website

উক্ত প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায় যে, এটি গ্রাউণ্ড ইফেক্ট যান যা “Ekranoplan” নামে পরিচিত। Ekranoplan মূলত জাহাজ এবং উড়োজাহাজের বৈশিষ্ট্যের সমন্বয়ে তৈরী একধরণের যান। যদিও ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অরগানাইজেশন Ekranoplan কে জাহাজ হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করেছে। কিন্তু এই প্রজাতির যান পানি থেকে ১৬ ফিট উপরে উড়তে সক্ষম।

Screenshot from cnn website

প্রতিবেদন থেকে আরো জানা যায় যে, আলোচিত ছবিটি Lun শ্রেনীর Ekranoplan এর। এটি ১৯৯০ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভাঙনের পূর্ব পর্যন্ত চালু ছিলো।

Screenshot from cnn website

স্নায়ু যুদ্ধকালীন সোভিয়েত সেনাবাহিনীর এই মহাঅস্ত্র এর দ্রুতগতি এবং অনন্য বৈশিষ্ট্যের জন্য রাডার ফাঁকি দিতে সক্ষম ছিলো। সোভিয়ত ইউনিয়ন এবং ইরানের  বিশাল জলরাশি জুড়ে অবস্থান করায় একে কাস্পিয়ান সাগরের দানব নামে ডাকা হতো।

পাশাপাশি, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক এবং বানিজ্যিক সাংবাদ ওয়েবসাইট Business Insider এ ২০১৪ সালের ২৮ জুন প্রকাশিত “Here’s the astonishing hovercraft the Soviets could have used to invade western Europe in the 80sশিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

Screenshot from businessinsider website

এই প্রতিবেদনথেকে জানা যায়, Lun প্রজাতির Ekranoplan ছিলো তদানীন্তন সোভিয়েত ইউনিয়ন তথা কমিউনিস্ট ব্লকের মহাঅস্ত্র। ন্যাটো ভুক্ত দেশগুলোর সাথে যুদ্ধের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে স্নায়ু যুদ্ধ চলাকালীন বিশ্বে এই সুপার-যানটি তৈরী করা হয়েছিলো। বিশ শতকের প্রযুক্তিগত দক্ষতার একটি বিস্ময় ছিলো এই Ekranoplan। পারমাণবিক ওয়ারহেডে সজ্জিত এবং প্রতি ঘন্টায় ৩৪০ মাইল বেগে সমুদ্র জুড়ে বিস্ফোরণে সক্ষম ছিলো এটি। 

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ডয়েচ ভেল এর ইউটিউব চ্যানেলে ২০২১ সালের ৯মে প্রকাশিত “The ekranoplan flying boat: Russia’s ‘Caspian Sea Monster’ | Focus on Europeশিরোনামে একটি ভিডিও প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়। প্রতিবেদনটিতে Ekranoplan এর সাগরের উপরে দ্রুত গতিতে চলমান অবস্থার পুরোনো কিছু ফুটেজ দেখা যায়। 

পাশাপাশি, গ্লোবাল এরোস্পেস, ইনফ্যান্ট্রি ওয়ারফাইটার, ডিফেন্স ভেহিকল এবং নৌ/সামুদ্রিক অফার নিউজ সংক্রান্ত ওয়েবসাইট Military factory.com থেকে জানা যায় যায়, Ekranoplan যান এর ন্যাটো কোডনেম ছিলো DUCK (হাঁস)।

অন্যদিকে Forbes এর ২০২০ সালের ১ আগস্ট প্রকাশিত “Powerful Russian ‘Ekranoplan’ Ground Effect Plane Makes Final Voyageশিরোনামের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সোভিয়েত ইউনিয়নের এই  WIG ( Wing In Ground) ক্রাফট Moskit নামের সুপারসনিক মিসাইল যুক্ত ছিলো। ন্যাটো বাহিনীর কাছে এই মিসাইল পরিচিত ছিলো SS-N-22 Sunburn নামে।

Screenshot from forbes website

এই মিসাইল যুক্তরাষ্ট্রের নৌ-বাহিনীর Harpoon মিসাইলের চেয়েও দ্রুতগতি সম্পন্ন ছিলো। পানির ১৬ থেকে ৩২ ফিট উপরে দ্রুতগতিতে রাডার ফাঁকি দিতে সক্ষম Ekranoplan ২২ মাইল দূর পর্যন্ত জাহাজ জাতীয় টার্গেট শনাক্ত করতে সক্ষম ছিলো। এবং বহনকৃত মিসাইলটি এর তথ্য ব্যবহার করে ৬০ মাইল পর্যন্ত টার্গেটকে নূন্যতম রিয়াক্ট করার পূর্বেই পুরোপুরি ধ্বংস করে দিতে সক্ষম ছিলো।

এছাড়া, Daily Mai এ ২০২১ সালের ২১মার্চ “Revealed: The inside of the ‘Caspian Sea Monster’ – Drone images show the Soviet-era flying machine set to become a tourist attraction in southern Russia” শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে, রাশিয়ার ডাজেস্টান শহরের কাস্পিয়ান সাগর পাড়ে “Patriot park” নামের স্থানে দর্শনার্থীদের প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে LUN সিরিজের Ekranoplan টিকে রাখা হয়েছে।

Screenshot from dailymail website

মূলত, স্নায়ুযুদ্ধকালীন সময়ে ন্যাটো বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ পরিচালনার লক্ষে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন পদার্থ বিদ্যার গ্রাউন্ড ইফেক্ট থিওরি ব্যবহার করে পানির মাত্র ১৬ ফিট উপরে উড়তে সক্ষম Ekranoplan তৈরী করে। দ্রুতগতি এবং রাডার ফাঁকি দিতে সক্ষম এই যান ছিলো বিশ শতকের এক মহা বিস্ময়।  ১৯৯০ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পূর্ব পর্যন্ত এই যানটি ব্যবহার করা হতো। কাস্পিয়ান সাগরের দানব নামে পরিচিত এই যানটি ২০২০ সালে এর শেষ যাত্রা করে এবং একে প্রদর্শনীর জন্য ডাজেস্টান শহরের কাস্পিয়ান সাগর পাড়ে “Patriot park” এ রাখা হয়। রাশিয়ার জাহাজ এবং উড়োজাহাজের বৈশিষ্ট্যের সংযুক্তিতে নির্মিত Ekranoplan কে পরিত্যক্ত সোভিয়েত উড়োজাহাজ দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হচ্ছে। 

উল্লেখ্য, ইরানের নৌ-বাহিনী এখনো Wing in Ground (WIG) জাতীয় ক্রাফট ব্যবহার করে। তবে তা রাশিয়ার Ekranoplan এর তুলনায় অনেক ছোট।  

সূতরাং, রাশিয়ার জাহাজ এবং উড়োজাহাজের বৈশিষ্ট্যের সংযুক্তিতে নির্মিত Ekranoplan কে পরিত্যক্ত সোভিয়েত উড়োজাহাজ দাবিতে প্রচার করা হচ্ছে; যা সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর।

তথ্যসূত্র



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published.