Categories
Tips and Tricks

পিসির Bottlenecking কী? কীভাবে এটি ঠিক করা যায়? | Techtunes


আসসালামু আলাইকুম টেকটিউনস কমিউনিটি, কেমন আছেন সবাই? আশা করছি ভাল আছেন। বরাবরেই মত আজকেও চলে এসেছি নতুন টিউন নিয়ে।

Bottlenecking! একটি টার্ম যার সাথে বিশেষ করে তারা পরিচিত যারা কাস্টমাইজ পিসি বিল্ড করে। আমজনতা এটার সম্পর্কে পরিচিত নাও হতে পারে, তবে আপনি যদি পিসি বিল্ড করে থাকেন তাহলে অবশ্যই এটি সম্পর্কে শুনেছেন। তো, Bottlenecking কী? কিভাবে পিসিতে এটি প্রভাব ফেলে এবং কিভাবে এটি ফিক্স করা যায় এই সকল বিষয় নিয়েই আজকের এই টিউন।

Bottlenecking কী?

Bottlenecking হার্ডওয়্যারের এমন অবস্থা যা প্রসেসিং পাওয়ার এবং গ্রাফিক্যাল পারফরম্যান্সকে লিমিট করে। Bottlenecking মূলত হয় যখন দুটি কম্পাউন্ড এর সর্বোচ্চ ক্ষমতার পার্থক্যের ঘটে। এই অবস্থায় একটি হার্ডওয়্যারের সর্বোচ্চ ক্ষমতা অন্য অংশকে ছাড়িয়ে যায়।

সহজ ভাবে বুঝানোর জন্য একটি উদাহরণ দেয়া যেতে পারে, ধরুন একটি বোতল থেকে অনেক পানি এক সাথে বের হবে কিন্তু বোতলের মুখ ছোট হবার কারণে সেটা পারছে না। পিসির ক্ষেত্রেও বিষয়টি এমন, আমরা জানি পিসিতে ভিন্ন ভিন্ন হার্ডওয়্যার এক সাথে কাজ করে, কিন্তু একই কাজ করতে সাহায্য করে। যখন একটা হার্ডওয়্যার অন্য হার্ডওয়্যারের সমান কাজ করতে পারে না বা একই গতিতে কাজ করতে পারে না তখনই সাধারণত Bottlenecking হয়।

তো এতক্ষণে হয়তো বুঝে গিয়েছেন নির্দিষ্ট ব্র‍্যান্ড, কম্পিউটারের বয়স, পার্টস এর কোয়ালিটির উপর Bottlenecking নির্ভর করে না। এর কারণ পার্টস গুলোর কর্মক্ষমতার পার্থক্য। এটা শুধু হাই এন্ড পিসির ক্ষেত্রে হবে এমনটি নয় লো বাজেট পিসির ক্ষেত্রেও হতে পারে যদি আপনি ঠিক মত হার্ডওয়্যার সিলেক্ট করতে না পারেন।

পিসির চারটি Bottlenecking

চলুন পিসির চারটি কমন Bottlenecking এর উদাহরণ দেখে নেয়া যাক।

১. CPU/GPU Bottlenecking

গেমিং পিসির ক্ষেত্রে কমন একটি Bottlenecking হচ্ছে CPU/GPU Bottlenecking। CPU এর কাজ হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন গুলো ক্যালকুলেট করা এবং গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিটে (GPU) রেন্ডারিং নির্দেশাবলী পাঠানো। অধিকাংশ সময় যেটা হয়, ভুল ভাবে পরিকল্পিত ডিভাইসে CPU এর তুলনায় শক্তিশালী গ্রাফিক্স কার্ড রাখার ফলে, CPU দুর্বল পারফরম্যান্স দেয় এবং প্রতি সেকেন্ডে ফ্রেম সংখ্যা লিমিট করে।

এখানে CPU ও যদি শক্তিশালী হতো তাহলে সহজেই GPU এর 100% ব্যবহার করা যেতো কিন্তু এই ধরনের Bottlenecking, কারণে এটা সম্ভব হয় না।

২. GPU/CPU Bottlenecking

আপনার CPU যখন GPU এর চেয়ে শক্তিশালী হয় তখন এই সমস্যা হয়। এক্ষেত্রে CPU দ্রুতই আপনার গেমকে প্রসেস করে ফেলে কিন্তু GPU তত দ্রুত সেটা রেন্ডার করতে পারে না। আর এই জন্যই গেমিং পিসি বিল্ড করার সময় যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বন করতে হয় এবং ভাল গাইডলাইন নিতে হয়

৩. হার্ড ড্রাইভ Bottlenecking

এই ধরনের Bottlenecking দেখা দেয় যখন আপনার CPU, GPU, এবং RAM, সব কিছুই আপগ্রেড থাকে কিন্তু হার্ড ড্রাইভ পুরনো থাকে। পুরাতন HDD থেকে ডেটা রিড করতে অন্যান্য হার্ডওয়্যারের পক্ষে কষ্টকর হয়ে যায় এবং লোড টাইম বেশি লাগে। এই ধরনের সমস্যায় পুরনো HDD বাদ দিয়ে ফাস্ট SSD ইন্সটল করতে হবে।

৪. ডিসপ্লে Bottlenecking

আপনি যখন গেমিং এ Nvidia RTX 3080, ব্যবহার করবেন কিন্তু মনিটর রাখবেন 60Hz, এর 1080p মনিটর তখন ডিসপ্লে Bottlenecking দেখা দেবে। আপনি আলট্রা সেটিংস এ গেম খেলতে চাইবেন কিন্তু হার্ডওয়্যার সাপোর্ট করবে না।

কীভাবে পিসি Bottleneck চেক করবেন?

আপনি যদি নিশ্চিত হোন যে আপনার পিসিতে আশানুরূপ পারফরম্যান্স পাচ্ছেন না, তাহলে আপনার Bottleneck চেক করা জরুরি। তবে এটা চেক করা এত সহজ না যে পিসির কেইস খুলে ফেললেন আর দেখে নিলেন। কয়েক ভাবে আপনি Bottleneck চেক করতে পারেন।

অনলাইনে এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলোর মাধ্যমে Bottleneck চেক করা যায়। CPU Agent’s FPS and Bottleneck Calculator তাদের মধ্যে অন্যতম। ওয়েবসাইটে যান, আপনার পিসির CPU, GPU, RAM ইনফরমেশন দিন, এবং Calculate FPS অথবা Bottleneck বাটমে ক্লিক করুন। পিসির স্পেসিফিকেশন জানতে তো গুগল আছেই।

Bottleneck চেক করার দ্বিতীয় অপশন হচ্ছে PC Builds Bottleneck Calculator, এটিও আপনাকে Bottleneck এর তথ্য দিতে পারবে। এখানে আপনাকে ম্যানুয়ালি ইনফরমেশন দিতে হবে না। এটা আপনার সিস্টেম ব্যবহারের পারমিশন চাইবে, পারমিশন দিলেই নিজেই খুঁজে বের করবে কোথায় সমস্যা।

কীভাবে পিসি Bottleneck ফিক্স করা যায়?

Bottleneck এর সমাধান হচ্ছে যখন আপনি কোন পিসি বিল্ড করবেন তখন অবশ্যই ব্যালেন্স হার্ডওয়্যার ব্যবহার করুন। হাই এন্ড বা ওভার পাওয়ার হার্ডওয়্যার কেনার চেয়ে ভারসাম্যকে গুরুত্ব দিন। নির্দিষ্ট কয়েকটা হার্ডওয়্যার বেশি পাওয়ারফুল কিনলেন আর বাকি গুলো কোন মত দিলেন, এমনটা করা যাবে না। একে অপরের সাথে যেন ফিট হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

PCPartPicker এর মত ওয়েবসাইট আপনাকে পিসি বিল্ড এ সহায়তা করতে পারে। সেখানে আপনি জানতে পারবেন কোন হার্ডওয়্যার গুলো ভাল কাজ করবে কোন গুলো ভাল কাজ করবে না। এই ওয়েবসাইটের সাজেশনে পিসি বিল্ড করলে সেটা সব সময় পারফরম্যান্স দেবে, তা আপনি যে গেমই চালাতে চান।

তবে এই ধরনের ওয়েবসাইট গুলোর একটি সমস্যা হচ্ছে, তারা আপনাকে কম্পিটিবল পার্ট দেখাতে পারে কিন্তু কী ধরনের সমস্যা হতে পারে সেটা জানতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে আপনার উচিৎ হবে বিভিন্ন অনলাইন চেকারের মাধ্যমে সম্ভাব্য হার্ডওয়্যার গুলো চেক করে নেয়া।

সুতরাং Bottleneck সমস্যা ফিক্স করতে Builds Bottleneck Calculator এর মত ওয়েবসাইট গুলো ব্যবহার করুন এবং তাদের সাজেশন অনুযায়ী হার্ডওয়্যার পরিবর্তন করুন। পুরো সিস্টেম পরিবর্তন করার আগে, নির্দিষ্ট হার্ডওয়্যার পরিবর্তন করে দেখুন কাজ হয় কিনা।

শেষ কথা

এটা বলার অপেক্ষা রাখে না Bottlenecking আপনার পিসির পারফরম্যান্সে ব্যাপক ভাবে প্রভাব বিস্তার করতে পারে। তবে সেটা ফিক্স করার কঠিন কিছু না, উপযুক্ত পরিকল্পনার মাধ্যমে এটি ঠিক করা যেতে পারে। পিসি বিল্ড এর সময় ব্যালেন্স হার্ডওয়্যার ব্যবহার করুন এবং কোন সমস্যা দেখে দিলে অনলাইন টুলের মাধ্যমে চেক করুন।

তো আজকে এই পর্যন্তই পরবর্তী টিউন পর্যন্ত ভাল থাকুন আল্লাহ হাফেজ।



Source link

Leave a Reply